RADHANATH SWAMI: AMBANI-PIRAMAL FAMILY’S GURUJI

Posted on 20th January, 2022

Updated on 6th April, 2022

Disclaimer:
All the reports are collected from different websites and newspapers. The collectors of these reports/information are not responsible for any legal issues.

Complied by Debaprasad Bandyopadhyay⤡ Akhar Bandyopadhyay⤡

Dedicated to Late Joydeb Mukhopadhyay⤡, the writer of “Kahan Gele Toma Paai” (“Where do I find you”), assassinated by some unknown “Vaisnavas” for writing about the death (or murder?!) mystery of Sri Caitanya Mahaprabhu…

Dear DHFL Victims,

In continuation with our previous letter to Sri Radhanath Swami⤡, we would like to point out the following reports without making any value-loaded judgments.

Kindly note that Sri Radhanath Swami is the preceptor of the Ambani-Piramal Family.

·         Radhanath Swami with his Parents at Piramal’s residence VIEW HERE ⤡ (As reported on 14th April, 2012 ©HH Radhanath Swami Media Services)

·         Ambani family arrives at ISKCON temple with Ajay Piramal VIEW HERE ⤡ (As reported on 7th May, 2018 ©ANI News Official)

We are not in the safe hands! Earlier we have revealed:  

1)    The Dawood-Mirchi-RKW-DHFL-BJP collusion in our case, i.e., the Dewan Housing Finance Corporation Limited (DHFL) Scam (political charity or terror-funding) ⤡;

2)    Illegal misconducts of the DHFL CoC appointed by the RBI ;

3)    Ajay Piramal’s dark background ;

Now, I will unveil Ambani-Piramal’s guru Radhanath Swami’s scams & scandals one by one. Legal route is okay and fine! However, we have to build immense pressure through the web or by deploying any means to expose the persons, who are responsible for our miseries, despite the fact that my life is at risk!

1.     Before commenting on Radhanath Swami’s (mis-)deeds, let us mention a fact/fiction about the International Society for Krishna Consciousness (ISKCON).

According to some conspiracy theorists, ISKCON has a deep connection with the CIA:

Soviet Says Hare Krishna Cloaks Hide C.I.A. Daggers VIEW HERE ⤡ (As reported on 31st July, 1983 © The New York Times)

Even there were many allegations of abusive activities” within the premises of the ISKCON: 

ISKCON commune in West Virginia gets mired in murder, child molestation, kidnapping storm VIEW HERE  (As reported on 15th May, 1987 ©India Today)

ISKCON front for money laundering: Swami Swaroopanand Saraswati VIEW HERE  (As reported on 9th February, 2016 ©The Economic Times)

It is to be noted that the CIA is infamous for its religious intervention and manipulation for destabilizing the sovereignty and integrity of prātibhāsika imagined boundaries of nation states.

The Religious Crusades of the CIA VIEW HERE  (As reported on 21st January, 2015©The India Facts)

It is also to be noted that the above report was published at the time of flourishing of violent religious extremism in India.

It was also told that Śrīla Prabhupāda, the founder of ISKCON, was poisoned and ISKCON was hijacked by the CIA!   

Are ISKCON devotees CIA agents? VIEW HERE  (As reported on 15th July, 2015 ©Chaitanya Charan Prabhu)                                                                                          

ISKCON: A Critical Analysis VIEW HERE  (As reported on 5th December, 2019 ©Saffron Research and Analysis Wing S-RAW भगवा अनुसन्धान एवं विश्लेषण संस्था)

In consonance with the above facts/fictions, here are some findings (facts or allegations?!) regarding Radhanath Swami’s role in some activities or pursuits involving legal conflicts:

2.     I)   a) Cost of Silence: Part I VIEW HERE ⤡ (©Krishna’s Children)

b) Cost of Silence: Part II  VIEW HERE ⤡ (As reported on 25th February, 2019 ©Krishna’s Children)
The documentary condemns the rogue elements: child abusers, paedophiles and murderers) within ISKCON. It exhorts people to speak up against such activities within all religious institutes and not be apathetically silent towards them. Radhanath Swami, for instance, due to his questionable as well as disputed activities, is barred from entering into the ISKCON!

c) Jvalamukhi: testimony on Radhanath Swami- Cost of Silence Documentary (Uncut) VIEW HERE ⤡ (As reported on 16th April, 2017 ©Radha Madhava Das). This testimony was given for the Cost of Silence documentary by Sanaka Rsi. Only a small portion was used in the film. Here is the complete unedited interview.

II) Faith and Fear: The Children of Krishna VIEW HERE ⤡ (2001) Faith & Fear (2001) explores one of the darkest secrets of the 1970s and 80s — the reported abandonment and paedophilic abuse of children raised as Hare Krishnas. This documentary combines in-depth interviews with exclusive archival footage to explore the history of the Hare Krishna movement and the experiences of former members.

III) a) RADHANATH SWAMI responsibility in “Killing for Krishna ” Interview of Henry Doktorski VIEW HERE ⤡ (As reported on 17th October, 2020 ©Henri Jolicoeur)

b) Radhanath Swami is a “RAPIST” ? So says Jvalamukhi dasi testimonial VIEW HERE ⤡ (As reported on 10th August, 2017 ©Henri Jolicoeur)

IV) Radhanatha is still a dangerous man (ISKCON) VIEW HERE ⤡ (As reported on 18th July, 2011 ©Hare Krishna News)

“I knew Radhanath was a fraud from day one, the first time I saw him. The first thing that came to mind was ok, why is he talking like that? It seemed so fake to me. I couldn’t understand why he was talking like that, and why people were falling for it. If so many are being fooled, is it not our duty as Vaishnavas to warn them from surrendering to such a false guru? Should we not warn them to not hear from such a person? So now it is only through this and other sites that people can really find out about Radhanath and others who are clearly not representing Srila Prabhupada.”

V) RADHANATH SWAMI: CHARLATAN OR SAINT? VIEW HERE ⤡ (As reported on 23rd November, 2010 ©Prabhupada Vision)

VI) Who is who? – in New Vrindaban VIEW HERE ⤡ (©Hare Krsna.org)

VII) Radhanath Swami’s Alleged Involvement in Sulochan’s Murder VIEW HERE ⤡ (As reported on 13th December, 2010 ©ISKCON Truth)

VIII) Evidence Points to Radhanatha Swami VIEW HERE ⤡ (As reported on 26th June, 2015 ©Radha.name)

Radhanath Swami: an alleged murderer– will he kill ourselves for money?? In India, extra-legal means are more powerful than court of law. What shall we do with such cons, who are, along with gangsters, torturing us?

IX) Killing for Krishna: The Danger of Deranged Devotion VIEW HERE ⤡ (©Henry Doktorski)

We, the compilers, are also risking our lives by revealing the Dawood-Mirchi connection, BJP-RSS Involvement and the so-called “Vaisnava” involvement in this biggest financial scam in India (viz., DHFL Scam).  

Dear DHFL Victims, If the above reportings are believed to be “true”, please do not expect anything from this superrich guru with legal conflicts. He is as controversial as Asaram Bapu, Sadhguru, Ramdev, Ravishankarji, Gurmeet Ram Rahim Singh Ji et al. DHFL Victims are sandwiched by the gangsters (Dawood-Mirchi), crony government, the ruling party (whose assets are astronomically increasing) and wealthy religious institutes consisting of religious mafias (ISKCON, Sri Ramakrishna Mission etc.).

See also: RELIGION-BUSINESS-POLITICS-GANGSTERS AND THE OTHER 99% VIEW HERE ⤡ (As reported on 11th October, 2021 ©Once in a Blue Moon Academia)

10 Comments

  1. Akhar Bandyopadhyay says:

    Reblogged this on Akhar Bandyopadhyay.

    Liked by 4 people

  2. #ইসকন_একটি_নয়া_উপনিবেশবাদ
    #ধর্ম_মাফিয়া_ইসকন এবং #বাঙালির_বিপদ:

    Shamindra Ghosh Kunal .

    #বঙ্গের_বৈষ্ণব:
    অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের বৈষ্ণবতত্ত্ব গড়ে উঠেছিল চৈতন্যদেবের দ্বারা; নেপথ্যে ছিলেন অদ্বৈতাচার্য। চৈতন্যেদেবের মতবাদ “অচিন্ত্যভেদাভেদ”; যার সারাংশ হলো, ধর্মীয় ভেদাভেদ ভুলে রাধা কৃষ্ণের প্রতি ভক্তি রেখে মানুষে মানুষের বিভেদহীন, মিলনের সমাজ গঠন করা। চৈতন্যদেব অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের “নবজাগরণের” পথিকৃৎ, একথা অনৈস্বীকার্য; যদিও তা যুক্তির বদলে ভক্তির দ্বারা হয়েছিল; এই বিষয়ে বিশ্লেষণ বিস্তারিত পরে দেওয়া হবে।
    তো, চৈতন্যদেবের দ্বারা অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের বৈষ্ণব ধর্মসম্প্রদায়ের তত্ত্বের ও প্রয়োগের সারাংশ হলো — রাধা ভাব নিয়ে কৃষ্ণপ্রেম ভজনা; অর্থাৎ, রাধা হলো বিরহের প্রতীক; সেই ভাব নিয়ে কৃষ্ণের প্রতি প্রেম নিবেদন এবং মিলনের আকুতিতে ভজনা করা, এবং সমাজের জাতপাত, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র ইত্যাদি ভেদাভেদ ভুলে যাওয়া, সব মানুষকে মানুষ হিসেবে দেখা।
    এই মতেরও বিভিন্ন শাখা গঠিত হয়েছিল চৈতন্যদেব গুম খুন হওয়ার পর থেকে; কিন্তু কেউই ওই রাধা ভাব ও কৃষ্ণ ভজনা ছাড়েনি; এবং চৈতন্যদেবের অনুগামী বিভিন্ন শাখার ভক্তগণ কেউই স্পষ্টভাবে “শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা”র উল্লেখ কোনদিনই করেনি এবং করে না; বরং তাদের মধ্যে পৌরাণিক “শ্রীকৃষ্ণ” এবং গীতগোবিন্দ, শ্রীকৃষ্ণকীর্তন ইত্যাদি কাহিনী প্রধান ও বহুল প্রচলিত। এদের জীবনযাপন সহজ, সাবলীল ও আড়ম্বরহীন, ত্যাগই এদের কাম্য; বিভিন্ন পেশায় যুক্ত, কেউবা ভিক্ষুক; জনগণের থেকে চাঁদা সংগ্রহ ক’রে উৎসব, অনুষ্ঠান, পরব পালন করে, জীবন চালায়।

    #ধর্ম_মাফিয়া_ইসকন:
    #ইসকনের প্রতিষ্ঠাতা অভয়চরণ দে (১ সেপ্টেম্বর, ১৮৯৬ — ১৪ নভেম্বর, ১৯৭৭); সুবর্ণ বণিক তথা সোনার বেনে সম্প্রদায়ের; স্কটিশ চার্চ কলেজ পড়তেন; পড়া ছেড়ে ওষুধের ব্যবসা করতেন; ১৯৪৭-৫০ নাগাদ বৃন্দাবনের কাছে গরু পালন করতেন এবং কৃষ্ণ, বৈষ্ণব সংক্রান্ত পুরাণ চর্চা করতেন; ১৯৬৫তে হিন্দু প্রচারক পরিচয়ে প্রথম সুযোগ নিয়ে আমেরিকায় প্রবেশ করেন এবং ১৯৬৬র জুলাই মাসে ইন্টারন্যাশনাল সোসাইটি ফর কৃষ্ণ কনসাসনেস, সংক্ষেপে ইসকন নামক সংগঠন প্রতিষ্ঠা করেন আমেরিকার নিউইয়র্ক শহরে। এরপরে আমেরিকার বিভিন্ন শহরে, ইউরোপের বিভিন্ন দেশে ইসকনের প্রচারক হন, মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯৭১-এ বৃন্দাবনে ফেরেন; ভারত জুড়ে প্রচার করেন; মুম্বই, বৃন্দাবন এবং মায়াপুরে মন্দির প্রতিষ্ঠা করেন।
    ইসকন সংগঠনের আদর্শের ভিত্তি “শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা”; অর্থাৎ, সেখানে উল্লেখিত অর্জুনকে বলা কৃষ্ণের বক্তব্যসমূহ; অর্থাৎ, “ধর্মযুদ্ধ” করা; কারণ, সমস্ত মহাভারতই ধর্মযুদ্ধের জন্যে রচিত হয়েছিল; এবং মহাভারতের অন্যতম প্রধান অংশ “শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা”; এবং তার সমস্তই ধর্মযুদ্ধে স্বজন হত্যার জন্যে সাফাই দিতে রচিত। ইসকনের এই “শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা” অনুসারী কৃষ্ণভক্তিতে যত-না রাধা, তার বহুগুণ কৃষ্ণ এবং “শ্রীমদ্ভাগবদ্গীতা”র মর্মার্থ প্রচার করা কাজ; এরপরের ধাপে চৈতন্যদেবের প্রতি ভক্তি; কিন্তু রাধা প্রায় অনুপস্থিত এবং বঙ্গীয় বৈষ্ণবদের সঙ্গে ব্যাপক পার্থক্য রয়েছে ইসকনের। ইসকন পশ্চিমী ধনী দেশের অজস্র বহুজাতিক কোম্পানির অর্থে যাবতীয় কর্মকাণ্ড চালায়। তাই, ইসকন হলো “বিকৃত বৈষ্ণব” এবং ভক্তির ছদ্মবেশে সশস্ত্র মৌলবাদী সংগঠন যা আমেরিকার নিউইয়র্কে গঠিত হয়; উদ্দেশ্য, উপমহাদেশে হিন্দু-ইসলাম দাঙ্গা বাধানো এবং আমেরিকার অঙ্গুলিহেলনে সমাজ, রাষ্ট্র পরিচালনা করা। ইসকনের ভক্তবৃন্দ ২০১৯ সাল থেকে গত তিন বছরে পুরোনো শ্রীহট্ট, নোয়াখালী ও চট্টগ্রাম — তিনটে জেলা জুড়ে ইসলামবিরোধী একাধিক হিংসাত্মক ঘটনা ঘটিয়েছে এবং তাদের দ্বারা বেশ কয়েকজন ইসলামী ও হিন্দুকে গ্রেপ্তার করানো হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে; পাল্টা হিসেবে ইসকনের কয়েকজন ভক্তকেও “অনেক কষ্ট ক’রে” গ্রেপ্তার করা হয়েছে। বাংলাদেশে ইসলামের বিরুদ্ধে এবং হিন্দু জাগরণের ক্ষেত্রে সংখ্যালঘিষ্ঠ হিন্দুরা যত-না সক্রিয় তার চেয়ে বহুগুণ বেশি সক্রিয় ইসকন; এদের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ, এদের সঙ্গে বাংলাদেশের সরকারী উচ্চপদস্থ বহু কর্মী যুক্ত এবং আঁতাত রয়েছে; তাদের চাপেই সরকারী নিম্নপদস্থ কর্মীরা ইসকনের পক্ষে কাজ করতে বাধ্য হচ্ছে; ইস্কুলে গিয়ে খাবার দেওয়ার নাম করে জবরদস্তি “হরেকৃষ্ণ” স্লোগান দেওয়ানো হচ্ছে; সমাজসেবার নাম করে জমি সম্পদ দখল করছে এরা; ধর্মীয় দাঙ্গার বাতাবরণ তৈরি করছে, উস্কানি দিচ্ছে। বাংলাদেশের এক বিরাট অংশের অভিযোগ, “৯ এপ্রিল, ২০১৭, (প্রকাশন তারিখ) বাংলাদেশ ও ভারতের মধ্যে ২২টি চুক্তি ও সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হয়েছিল। তারমধ্যে একটি চুক্তি হলো, বাংলাদেশ সেনা ও ভারতীয় সেনা একসঙ্গে কাজ করতে পারবে সন্ত্রাসীবাদীদের বিরুদ্ধে; এতে নেতৃত্ব দেবে ভারতের সেনা বাহিনী। তখন বাংলাদেশের অনেক নেতা মন্ত্রীর চেয়ার থাকবে কিন্তু ক্ষমতা থাকবে না; এবং অনেক নেতা মন্ত্রী, যাদের মালয়েশিয়া, সিঙ্গাপুর, জার্মানী, আমেরিকা, যুক্তরাজ্য, ফ্রান্স, ইতালি, দক্ষিণ আফ্রিকা, সৌদি আরব, কুয়েত, আমিরশাহী ইত্যাদি জায়গায় ২য় বাড়ি আছে, তারা ভারতের হিন্দুত্ববাদীদের হুমকির মুখে দেশ ছাড়বে; অন্যথায় তাদের গুম করে ফেলবে ভারতের হিন্দুত্ববাদীরা।” এই কারণেই নাকি ভারত এবং বাংলাদেশে হিন্দুত্বের উত্থান।
    আবার ইসকনের মন্দির ভাঙচুরের ঘটনাও ঘটেছে, এই বিষয়ে বহু অভিযোগ রয়েছে প্রশাসনের কাছে; ইসকন রাষ্ট্রসংঘের কাছেও দাবি জানিয়েছে নোয়াখালীতে তাদের মন্দির ভাঙার বিষয়ে তদন্তের জন্যে। ইসকনের দাবি আইসিস নামক মৌলবাদী ইসলামী সংগঠনের লোকজন তাদের মন্দির ভাঙছে। অর্থাৎ, ইসকন এবং ইসলাম দুই পক্ষই সন্ত্রাসের অভিযোগ করেছে দুই পক্ষের বিরুদ্ধে।
    বাংলাদেশের বহু নাগরিকের আশঙ্কা ইসকনের একটি গোপন চিঠি ফাঁস হওয়ায়; তারা বলে, আদপে ইসকনের লক্ষ্য ২০৩০-এর মধ্যে ভয়াবহ দাঙ্গা বাধিয়ে বাংলাদেশের কিছু অংশে “মুক্তাঞ্চল” এবং “কমিউন” গঠন করা; এরপরের ধাপে ২০৪১-৪২-এর মধ্যে সমগ্র বাংলাদেশ দখল করা, এমন আশঙ্কা বাংলাদেশের অনেক নাগরিকের। আরও অভিযোগ যে, ইসকনের সঙ্গে অনেক নাস্তিক নাকি যুক্ত হয়েছে, হচ্ছে। মানুষের অভিযোগ, “ইসলাম বিদ্ধেষী, নাস্তিক শাহরিয়া কবির ভারতীয় ইসকন নামক সংগঠনের সাথে জড়িত। এজন্য তিনি প্রতি মাসে ৬০% (প্রায় ৬০,০০০) টাকা ক’রে ইসকনের কাছ থেকে পান, বোনাস বাবদ পান ৪ লাখেরও বেশি।”
    অপরদিকে নদীয়ার মায়াপুর হলো ইসকন-বিশ্বের রাজধানী, এখানে বিশ্বের বৃহত্তম মন্দির নির্মাণ করেছে ইসকন; সেখানে একসঙ্গে প্রায় ১০০০০ মানুষ অবস্থান করতে পারে। এরসঙ্গে আছে আশেপাশের জায়গা জুড়ে অসংখ্য ছোট ছোট মন্দির, বৃহৎ আবাসন, কৃষিক্ষেত্র, বাগান, জলাশয়, রাস্তাঘাট, ফেরিঘাট, গুড়াম, গ্যারাজ, দোকানপাট, বাজার ইত্যাদি; এবং সংলগ্ন অঞ্চল জুড়ে বিক্ষিপ্তভাবে প্রচুর পরিমাণে জমি দখল করে রেখেছে নামে, বেনামে; এভাবে নদীয়ার কৃষ্ণনগর মহকুমার অনেকাংশ দখল করেছে ইসকন; হাজার হাজার একর কৃষিজমি এখন ইসকনের দখলে; তারাও তাদের প্রয়োজনীয় উৎপাদন এই দখলীকৃত জমিতে করছে; এই অঞ্চলে পরোক্ষভাবে বিভিন্ন পেশায় যুক্ত হয়েছে স্থানীয় বহু মানুষ; তারা রোজগার করছে; চাষবাস উঠে গেছে পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে। এভাবেই কার্যত ইসকন একটি “মুক্তাঞ্চল” ও “কমিউনি” গঠন করেছে বিশাল অংশ জুড়ে; এই অঞ্চল দাপিয়ে বেড়ায় ইসকন আশ্রিত ভক্তবৃন্দ এবং ভক্ত সশস্ত্র মাফিয়ারা। সারা পূর্ব ভারতে এবং বাংলাদেশে এরা ছড়িয়ে আছে মুখে “হরেকৃষ্ণ” বুলি নিয়ে বৈষ্ণবদের ছদ্মবেশে গেরুয়া ও সাদা কাপড়ের পোশাক পরে; এদের বিপুল অর্থ সরবরাহ করছে ইসকন; লক্ষ লক্ষ আবাসিক ও প্রচারক ভক্তের এবং সশস্ত্র মাফিয়াদের জীবনযাপনের ভার নে ইসকন; এই বিপুল অর্থের উৎস পাশ্চাত্যের বহু বহুজাতিক কোম্পানি। স্থানীয়ভাবে এদের সঙ্গে যুক্ত আঞ্চলিক ভক্ত-মাফিয়ারা চাঁদা তোলে; এটা মুখোশ।
    মায়াপুর এবং তার পার্শ্ববর্তী অঞ্চলে তদন্ত করে জানা গেল যে, ইসকনের এই দখল করা অঞ্চলে গিয়ে নিরস্ত্রভাবে তাদের ঈশ্বর সংক্রান্ত, কৃষ্ণের অস্তিত্ব সংক্রান্ত তাদের দাবি প্রমাণের জন্য বললে, তাদের তাত্ত্বিক চ্যালেঞ্জ করলে এবং তাদের দাবির আসারত্ব প্রমাণ করলে ওখান থেকে জ্যান্ত ফিরে আসা বা সুস্থ অবস্থায় মুক্ত হয়ে ফিরে আসা অত্যন্ত দূরূহ কাজ।

    ইসকনের তত্ত্ব ও প্রয়োগের ধরন দেখে একথা নিঃসংশয়ে বলা যায় যে, ইসকন আদপেই ভণ্ড বৈষ্ণব এবং এদের অন্যতম প্রধান উদ্দেশ্য অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গে উপনিবেশ স্থাপনের মাধ্যমে সম্পদ লুঠ করা, সমাজ-সংস্কৃতি, ভাষা, জাতিসত্ত্বা দূষিত করা এবং অধিবাসীদের পদলেহী, ভৃত্য, ভিখারি বানানো, আত্মমর্যাদাবোধহীন।

    প্রায় দুই হাজার বছর আগে রাজদণ্ডের সাহায্যে বৈদিক ব্রাহ্মণ্যবাদ ধর্মীয় এবং ভাষার আগ্রাসন চালিয়েছিল অখণ্ড বৃহৎ বাংলা জুড়ে, ধ্বংস করেছিল অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের লিখিত ইতিহাস, পুঁথিপত্র, স্থাপত্যসম্পদ, সামাজিক গঠন, অধিবাসীদের রীতিনীতি আচার ব্যবহার, জীবনযাপন প্রণালী ইত্যাদি এবং অবশ্যই আমাদের আত্মপরিচয়; রাজদণ্ডের আসীন ছিল গুপ্তবংশ, শশাঙ্ক, পালবংশ, সেনবংশ। তারপরে আমরা আক্রান্ত হই ইসলামের দ্বারা; ধর্মীয় বিভাজনে আমরা আবারও এবং আরও দীর্ণ শীর্ণ জীর্ণ হই; আবারও হারায় আমাদের আত্মপরিচয়, সমাজব্যবস্থা ইত্যাদি; সব জট পাকিয়ে গুলিয়ে দেওয়া হয়। এরপরে একাধিক বৈদেশিক আক্রমণ, লুঠপাট আমাদের নিত্য দুঃস্বপ্নের রাত, আশঙ্কার দিন কাটাতে হতো বছরের পর বছর ধরে; শেষে গত প্রায় তিনশ বছর আগে ইংরেজের বণিকের মানদণ্ড রাজদণ্ড হয়েছিল; এরা আমাদের সম্পদ লুঠ করেছিল, আমাদের সমাজ-সংস্কৃতি, ভাষা প্রায় পুরোটাই পাল্টে দিয়েছিল, আমাদের সামাজিক আত্মপরিচয় ভুলিয়ে দিয়েছিল; আমাদের ইতিহাস ধ্বংস করেছিল এবং তাদের ভাষা-সংস্কৃতি আমাদের ওপরে চাপিয়ে দিয়েছিল; এর ফল এখনও আমরা ভুগে চলেছি। আজও রাষ্ট্রীয় সমস্ত আইন এবং রাষ্ট্রীয় ব্যবস্থা ইংরেজদের অনুসারী, আজও বাংলা এবং স্থানীয় ভাষায় উচ্চশিক্ষা দেওয়া হয় না, ইত্যাদি বহু কিছু রয়েছে যা ওই বিদেশিদের ঔপনিবেশিক ভাবধারায় চলছে; আজও জাতি, ধর্ম, বর্ণ, গোত্র, সম্প্রদায়, ভাষা এবং সংস্কৃতি নিয়ে আমরা অজস্র খণ্ডে বিভক্ত, ছিন্ন বিচ্ছিন্ন, দীর্ণ শীর্ণ জীর্ণ হয়ে চলেছি; নিজেদের মধ্যে নিত্য কোন্দল করছি; আমরা ইতিহাস থেকে শিক্ষা নিচ্ছি না; কিছুতেই এক জাতিসত্ত্বার ভিত্তিতে এবং এক সাংস্কৃতিক সত্ত্বার ভিত্তিতে আমরা ঐক্যবদ্ধ হচ্ছি না; বরং এসব বিষয়ে আত্মবিস্মৃত হয়ে নিত্য আত্মকোন্দলে আত্মহত্যা করছি। এই অবস্থা মর্মান্তিক! এমন অবস্থা চলতে থাকলে অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের প্রায় ১২০০০ বছর ধরে পর্যায়ক্রমে গড়ে ওঠা একই জাতিসত্ত্বার এবং একই উৎসের ভাষা-সাংস্কৃতিক জনগোষ্ঠীর বিপুল অংশ কার্যত বিলীন হয়ে যাবে; যেভাবে ধ্বংস করা হয়েছিল ৪০০০০ – ৫০০০০ বছর ধরে গড়ে ওঠা উত্তর ও মধ্য আমেরিকার এবং অস্ট্রেলিয়া, তাসমানিয়ার একাধিক প্রাচীন সভ্যতাগুলো — ক্যারালসুপে, রেডইন্ডিয়ান, মায়া, আজটেক, টিওয়ানাকু, অলমেক, জোপোটেক, টোলটেক, মাযাটেক, নাস্কা, ইনকা, তাসমানিয়া, অস্ট্রেলীয় ইত্যাদি সভ্যতা।

    আমি কোনও উপাসনা ধর্ম মানি না এবং সমস্ত উপাসনা ধর্মই অমানবিক, অযৌক্তিক বলে প্রমাণ করেছি; এবং প্রমাণ করেছি যে, মানুষের একমাত্র ধর্ম, স্বভাব, বৈশিষ্ট্য, গুণ হলো “মানবতা”; এবং নিজেও লিখিত ঘোষণা ক’রে ধর্মহীন হয়েছি বহু বছর আগেই; তাই সমস্ত উপাসনা ধর্মের উচ্ছেদ চাই, কিন্তু তা গায়ের জোরে নয়। কিন্তু বিভিন্ন উপাসনা ধর্ম বিষয়ে তত্ত্ব, তথ্য কিছু জানি; সেই মোতাবেক উপাসনা ধর্ম নিয়ে আলোচনা ক’রে থাকি।
    অধুনা বৈষ্ণব ধর্ম বা সম্প্রদায় নিয়ে ইসকনের যাবতীয় কার্যাবলী পর্যবেক্ষণ এবং অনুসন্ধান করতে গিয়েই এতসব কাণ্ড জানতে পারলাম, যা আগামীদিনে অখণ্ড বৃহৎ বঙ্গের অধিবাসীদের জন্যে বিপদের, আতংকের।
    #শমীন্দ্রঘোষ
    COURTESY. Rupen Dutta.
    ১৫/০৬/২২

    Liked by 2 people

Leave a Comment

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s